সামনে আসছে ভ’য়ঙ্কর দিন ও আরো কঠিন ৫ বিপদ – OnlineCityNews

সামনে আসছে ভ’য়ঙ্কর দিন ও আরো কঠিন ৫ বিপদ

করো’নার চাপে পিষ্ট জনজীবন, সরকার করো’না মোকাবেলায় হিমশিম খাচ্ছে। একদিকে জনস্বাস্থ্যের হু’মকি, লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করো’না আ’ক্রান্তের সংখ্যা। অন্যদিকে জীবিকার সঙ্কট দেখা দিচ্ছে, দারিদ্র্য বাড়ছে, বাড়ছে বেকারত্ব, মানুষ হাঁসফাঁ’স করে উঠছে। অর্থনীতিবিদরা মনে করছেন যে, করো’নার যে সঙ্কট, সেই সঙ্কটের এখন সূচনা মাত্র। সামনে আরো কঠিন দিন আছে।

শুধু অর্থনীতিবিদ নয়, সমাজবিজ্ঞানীরা মনে করছেন, সামনে একটি ভ’য়ার্ত সময় অ’পেক্ষা করছে। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশকেও কতগুলো বাস্তবতার মুখোমুখি হতে হবে, যে বাস্তবতাগুলো আমা’দের জন্য হবে ভ’য়ঙ্কর।

একদিকে জনস্বাস্থ্যের হু’মকি, একদিকে অর্থনৈতিক সঙ্কট এবং মুক্তিযু’দ্ধের পর বাংলাদেশ প্রথম এরকম একটি বড় ধরনের আর্থসামাজিক এবং পূর্ণাংগ সঙ্কটের মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

করো’না সঙ্কট যত দীর্ঘায়িত হবে ততই আমা’দের দেশে নানা সঙ্কট তীব্র আকার ধারণ করবে। যে সঙ্কটগুলো বাংলাদেশে তীব্র আকার ধারণ করবে সেগুলোর দিকে একটু দৃষ্টি দেয়া যাক-

১. অসহিষ্ণুতা বাড়বে
করো’নার সঙ্কটের মধ্যে দেশে বেকারত্ব তৈরি হয়েছে। মানুষের মাঝে ক্ষোভ-অসন্তোষ দানা বেঁধে উঠছে। অনেক জায়গায় ত্রাণের ট্রাক লুট করা হচ্ছে। মানুষ গাড়ি ঘিরে ধরছে। ক্রমশ অসহিষ্ণু হয়ে উঠছে মানুষ এবং দিন যত গড়াবে এই অসহিষ্ণুতা তত বাড়বে। ক্ষুদ্ধ্ব মানুষ তার অধিকার আদায়ের জন্য রাস্তা বন্ধ করবে, আ’ন্দোলন-ভাংচুর করবে, লুট করবে। এই ধরণের প্রবণতাগুলো বেড়ে যাবে এবং এর ফলে একটি আতঙ্কের রাষ্ট্রে পরিণত হতে পারে বাংলাদেশ। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের অনেক দেশেই এই ঘটনাগুলো ঘটবে।

২. মানবতা, মানবিক মূল্যবোধ কমে যাবে
করো’নার সময়ে সবচেয়ে বড় যে বিষয়টি দেখা যাচ্ছে, তা হলো- মানবিক সঙ্কট। করো’নায় আ’ক্রান্ত মাকে ফেলে রেখে আসা হয়েছে, আত্মীয়স্বজন দূরে সরে গেছে, পরিবারকে একঘরে করা হয়েছে, করো’নার মৃ’ত ব্যক্তির লা’শ দাফন করেনি তার পরিবার। এই অমানবিক, হৃদয়বিদারক ঘটনাগুলো প্রতিনিয়ত গণমাধ্যমে আসছে। করো’নার সঙ্কট যত বাড়বে তত আমা’দের মানবিকতা, মানবিক মূল্যবোধ কমে যাবে।

আম’রা ক্রমেই অমানবিক হয়ে উঠবো, মানুষের প্রতি নূন্যতম দরদ দেখানো, ভালোবাসা দেখানো বন্ধ হয়ে যাবে। বরং সামাজিক বিচ্ছিন্নতার বিপরীতে আম’রা এক আত্মকেন্দ্রিক সমাজ গড়ে তুলবো। যে সমাজে শুধু আম’রা নিজের ভালোটাই বুঝবো। এমনকি আম’রা নিজের বেঁচে থাকার জন্য মা-বোন-ভাই বা নিকটাত্মীয়কেও আম’রা উপেক্ষা করতে কার্পণ্য করবো না। এরকম একটি অমানবিক সমাজ কখনো কল্যাণকামী সমাজ হতে পারে না।

৩. আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটবে
ইতিমধ্যেই আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির কথা শোনা যাচ্ছে। ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে গিয়ে ছিনতাই হচ্ছে। নানারকম অ’প’রাধ প্রবণতা বাড়ছে এবং পরিস্থিতি সামনে যত গড়াবে তত বাজে অবস্থা সৃষ্টি হবে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির আরেকটি দিক হচ্ছে যে, করো’নায় বিপুল সংখ্যক পু’লিশ আ’ক্রান্ত হচ্ছে এবং এই আক্রন্তের সংখ্যা আরো বাড়তে থাকবে। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ করার মতো লোকবলের সঙ্কট দেখা দেবে। এর ফলে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির বড় ধরণের সঙ্কটের আশ’ঙ্কা করছেন অ’প’রাধ বিজ্ঞানীরা।

৪. পারিবারিক সহিং’সতা বাড়বে
করো’নার কারণে দীর্ঘদিন ঘরে থাকার কারণে ইতিমধ্যে পারিবারিক সহিং’সতা, পারিবারিক নি’র্যাতন বেড়েছে এবং পরবর্তী সময়ে এটা আরো বাড়বে। কারণ অভাব-অনটনের সঙ্গে এই পারিবারিক সহিং’সতার একটি স’ম্পর্ক রয়েছে বলে সমাজবিজ্ঞানীরা মনে করেন। এর ফলে বিপুল পরিমাণ বিবাহ বিচ্ছেদ এবং সহিং’সতার ঘটনা বাড়তে থাকবে।

৫. শি’শু-কি’শোরদের মানসিক বিপর্যয় ঘটবে
করো’নার ফলে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ। ঘরব’ন্দি হয়ে আছে শি’শু-কি’শোররা। তারা কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা মোবাইল নির্ভর হয়ে পড়ছে। এর ফলে তাদের মানসিক বিকাশ রুদ্ধ হয়ে যাচ্ছে। এটার একটি দীর্ঘ নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন মনোবিজ্ঞানীরা।

করো’নার কারণে এই সবকিছু মিলিয়ে একটি ভ’য়ঙ্কর আগামীর অ’পেক্ষা করছে সকলে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করাটাই হবে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।-বাংলা ইনসাইডার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *