মোবাইলে কল দিলেই যা মিলছে এক মাসের জন্য – OnlineCityNews

মোবাইলে কল দিলেই যা মিলছে এক মাসের জন্য

ক’রোনাভাইরা’সের প্রা’দুর্ভাবে বিশ্ব’জুড়ে মানুষ বড় অসহা’য় হয়ে পড়েছে। ঘরবন্দি অনেক প্রবাসী খাদ্য সঙ্কটে মা’নবেতর জীবন-যাপ’ন করছে। রাস্তা’য় বের হয়ে সুস্থ অবস্থায় ঘরে ফেরার নিশ্চয়তা যেন একদম’ই হারিয়ে গেছে। এমতাবস্থায় নিউইয়র্কে বিপদগ্রস্ত বাংলাদে’শিদের সহযো’গিতায় হাত বাড়িয়েছে ‘বাংলাদেশ অ্যা’সো’সিয়েশন অব জ্যামাইকা’।

নি’উইয়’র্কে ২০ মার্চ ল’কডাউন শুরুর দিন থেকে প্রবাসী বাংলা’দেশি’দের এক মাসের নিত্যপ্রযো’জনীয় খাবার দিয়ে সহায়’তা করছে সংগঠনটি। সা’হায্যের প্রযো’জন হলে ১৭১৮ ৯৭১ ০০৫৪ নম্বরে কল দিলে তা’দের এক মাসে’র খাবার পৌছে দেন প্রতি’ষ্ঠানের সভাপতি বাহা’লুল সৈয়দ উজ্জ্বল।

নাম প্রকাশে অনি’চ্ছুক সাহায্য পেয়ে’ছেন এক বাং’লাদেশি টিভি তারকা বলেন, ‘কুইন্স ভিলেজ থেকে কোথাও বের হতে ভয় পাই। আমা’দের অর্থনৈতিক সামর্থ থাকলেও কিনতে যাওয়ার সা’হস নাই। পোলা’ওয়ের চাল, গুড়ো দুধ, চা-পাতা এবং ঘিসহ প্রায় এক মাসের খাবার দিয়ে সহ’যোগিতা করছেন। আমি কী বলে কৃত’জ্ঞতা প্রকাশ করব জানি না। আমা’র অনেক সহকর্মীকে তাদের কথা বলেছি তারাও তাদের স’হযোগি’তা পে’য়েছে বলে জানিয়েছে।’

সম্প্রতি যু’ক্তরাষ্ট্রে আসা আফ’রোজা তাসনিম বলেন, ‘এখানে এসে এমন খারাপ অবস্থায় পড়ব কো’নোদিন চিন্তাও করিনি। আত্মীয়-স্বজন থাকলেও কেউ এই সময় বাসায় এসে সহযো’গিতা করতে পারছে না। তারা খাবার না দিলে খুব বিপ’দে পড়ে যেতাম।’

সৈয়দ উজ্জ্বল বলেন, আমা’র অফিসের নিচে একটি সুপার মার্কেট আছে। লকডাউন শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিজের চোখে দেখেছি খাবার কিনতে মানুষের কষ্ট। আমি সামাজিক কার্যক্রমে জ’ড়িত থাকায় মানুষজন আমাকে জানায় তাদের দুর্দশার কথা।

বিশেষ করে বৃ’দ্ধ’রা, সিঙ্গেল মাদার, নতুন প্রবাসী, কাগজ-পত্রহীন মানুষ, সদ্য বেকাররা যখন ফোন করে ব’লেন তাদের ঘরে খাবার নাই। তখন নিজের ভালোম’ন্দের কথা আর চিন্তা করতে পারি না। নিজের গাড়িতে খাবার কিনে মা’নুষের বাড়িতে খাবার পৌছে দিই।

তিনি আরো বলেন, এই কার্য’ক্রমে স্বশরীরে এবং অর্থৈনৈতিকভাবে হাত বাড়িয়েছেন সংগঠনের সিনি’য়র সহ-সভাপতি সাই’ফুল্লাহ ভূইয়া, সহ-সাধারণ সম্পাদক আহনাফ আলম এবং খাবার বা’ড়ির অন্য’তম কর্ণধার কাম’রুজ্জামান কামরুল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *