আবারও সাধারণ ছুটি বা’ড়ানো নিয়ে নতুন যে সি’দ্ধান্ত – OnlineCityNews

আবারও সাধারণ ছুটি বা’ড়ানো নিয়ে নতুন যে সি’দ্ধান্ত

সাধারণ ছুটি না রেখে মানুষকে সচেতন করে স্বাভাবিক কাজ’কর্ম ও জন’জীবন সচল করার কথা ভাবছে সরকার। ক্ষ’মতাসী’ন দলটির নেতারা বলছেন, মুখে মা’স্ক পরা, সাবান দিয়ে ঘন ঘন হাত ধোয়া ও সামাজিক দূ’রত্ব বজায় রাখার অ’ভ্যাস সৃষ্টি করার মাধ্যমে মানুষের মাঝে ক’রোনা আ’তঙ্ক কমে যাবে। আর দেশের অর্থনীতির চাকা ও সব শ্রে’ণী-পেশার মা’নুষের জীবন-জীবিকা সচল রাখার জন্য পরবর্তী মেয়া’দে সাধারণ ছুটি বাড়ানো নিয়ে চিন্তা করা হচ্ছে।

সরকারি দলের নেতা’দের বরাত দিয়ে জাতীয় দৈনিক বণিক বার্তার আ’জকের সংখ্যায় প্রকাশিত সাংবাদিক তানিম আহ’মেদ-এর করা একটি বিশেষ প্রতিবে’দনে বলা হয়েছে, মা’নুষকেও বাঁ’চাতে হবে, অ’র্থনীতির চাকাও সচল রাখতে হবে।

এ ধারণা থেকে নভেল ক’রোনাভা’ইরাস মো’কাবে’লায় সাধারণ ছুটি পরিহার করার পথে যেতে চায় শেখ হাসি’নার নেতৃত্বা’ধীন সরকার। সাধারণ ছুটি আরো দীর্ঘমেয়াদি হলে অর্থনীতির ওপর দা’রুণভা’বে প্রভাব পড়বে। তাই সবকিছু থামি’য়ে দিয়ে আর বেশিদিন থা’কতে চাচ্ছে না সরকার। এরই মধ্যে সরকার সীমি’ত আকারে বিভিন্ন শিল্পপ্রতিষ্ঠান, পোশাক কারখানাও খুলে দিয়েছে। ঈদকে সামনে রেখে খোলা হচ্ছে দোকানপাটও।

সরকা’রের একজন মন্ত্রী বলেন, সাধারণ ছুটি বা লকডাউন দিয়ে লাগাম টানা সম্ভব হচ্ছে না নভেল ক’রোনাভাই’রাসের। আবার সাধারণ জন’গণকেও ঘরে আটকে রাখা যাচ্ছে না। অন্যদিকে বিশ্বের অন্য দেশ’গুলোও এখন ল’কডাউনের বিকল্প ভাবতে শুরু ক’রেছে। উন্নত দেশগুলোও অ’র্থনীতির হুম’কির কথা ভাবতে শুরু করেছে। সেই চিন্তা থে’কেই ইতালি, স্পেনসহ কিছু দেশ এরই মধ্যে লক’ডাউন শিথিলও করেছে। নভেল ক’রোনাভা’ইরাস মোকাবেলায় এখনো কো’নো ভ্যা’কসিন আবিষ্কার সম্ভব হয়নি। ফলে এ দুর্যো’গ আমা’দের আরো ভোগাবে। এ পরি’স্থিতিতে সরকা’রকে করো’না মোকাবে’লায় নতুন কিছু ভাবতে হচ্ছে।

ওয়ামী লীগের সভাপ’তিমণ্ডলীর একজন সদস্য বলেন, নভেল ক’রোনাভা’ইরাস মোকাবেলায় সাধারণ ছুটি বা লক’ডাউ’নের বিকল্প প’দ্ধতি’ কী হতে পারে—সে প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবছে সর’কার। মানুষকে স্বা’স্থ্য’বিধি মেনে চলতে অ’ভ্যস্ত হতে হবে। সচেতন, সতর্কভাবে স্বা’ভাবিক কাজে নিশ্চয়ই ফিরতে হবে।

তিনি বলেন, পৃথিবী থেকে নভেল ক’রোনাভাইরা’সের প্রাদু’র্ভাব কখন বিদায় নেবে সেটা নিয়ে সন্দেহ আছে। কারণ এখনো এর কোনো প্রতি’ষেধক আবি’ষ্কার হয়নি। কয়েকটা আবিষ্কা’রের কথা বললেও সেটার এখন পর্যন্ত কোনো বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই। বিগত শ’তাব্দীতে যে স্প্যা’নিশ ফ্লু মহা’মারীর প্র’তিষেধক আবি’ষ্কার হতে প্রায় ১০ বছরের মতো সময় লেগেছিল। এখন বি’জ্ঞান এগিয়ে গেছে, তাই হয়তো কম সময় লাগবে। কিন্তু আমা’দের তো থেমে থা’কলে চলবে না। সচেতন হয়ে সবাইকে নিজের কাজ করতে হবে। জীবন-জীবি’কা চালু রাখতে হবে।

রকা’রের আরেকজন মন্ত্রী বলেন, নভেল ক’রোনাভা’ইরাসের প্র’তিষে’ধক আ’বিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত এর ভয়া’বহতা কম-বেশি থাকবে। ততদিন মানু’ষকে ঘরে বসিয়ে রাখা যাবে না। ফলে সর’কারকে ভাবতে হচ্ছে বিকল্প উপায়। আপা’তত স্বা’স্থ্যবিধি মানা, সতর্কতা অবলম্বন করে মানুষকে।

চলতে অভ্যস্ত করে তুলতে হবে। এজন্য টেলিভিশন, বেতারসহ সব গণ’মাধ্যমে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান বেশি প্রচার করা হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে প্রয়ো’জনে বাধ্য করার প্র’ক্রিয়াও শুরু করা হতে পারে। আ’ক্রান্ত ব্যক্তিকে স’ঙ্গরোধ করে রাখা অব্যাহত থাকবে। মানুষকে আটকে রেখে নভেল ক’রোনাভাই’রাস প্রতি’রোধ কোনো’ভা’বেই সম্ভব নয়। পুষ্টিমান নিশ্চিত করে খাবার গ্র’হণের বিষয়ও প্রচার করা হবে সরকা’রের পক্ষ থেকে।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যা’লয়ের এক কর্মক’র্তা বলেন, করো’না মো’কাবেলায় কী করা যায়, তা নিয়ে প্রতিনিয়ত ভাবছেন প্রধানমন্ত্রী। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে কী উপায়ে পরবর্তী পরিস্থিতি মোকাবেলা করা হচ্ছে, সে বিষয়গুলোও তিনি পর্যা’লোচনা করছেন। এছাড়াও দেশী-বিদেশী গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন, সাম’য়িকী, গবেষকদের গবেষণার অগ্রগতি সবকিছু নি’বিড়ভাবে পর্যবে’ক্ষণ করছেন প্রধা’নমন্ত্রী। তিনি নিজেও বিকল্প উপায়ে কীভাবে করো’না মো’কা’বেলা করা যায়, সে পথ বের করার চেষ্টা করছেন।

সাধারণ ছুটি অব্যাহত রেখে মানুষকে ঘরে আ’টকে রেখে আসলে সে অর্থে সমাধান সম্ভব হচ্ছে না। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে সচেতনতা, সতর্কতা অ’বলম্বন করে মানুষ’কে ‘আস্তে আস্তে স্বাভাবিক অবস্থায়, স্বাভা’বিক পরিবেশে ফিরিয়ে আনার পক্ষে প্রধা’নমন্ত্রী। তিনি মনে করেন, অর্থনীতিও বাঁ’চাতে হবে, বাঁ’চাতে হবে মা’নুষকেও। এ দুটি বিষয় বিবেচনা করেই করো’না মো’কাবেলার পথ ভাবছে সরকার।

আওয়া’মী লীগের সভাপ’তিম’লীর সদস্য ফারুক খান বলেন, বাংলা’দেশ একটা গণতান্ত্রিক দেশ। চীন, সৌদি আরব কিংবা ইরানের মতো নয়। এদেশে কো’নো কিছু চাপিয়ে দেয়া যায় না। সরকার গত দেড় মা’সের মতো লক’ডাউন করে জনগণকে জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করেছে। এর অংশ হিসেবে মা’নুষকে বলা হচ্ছে, নভেল ক’রোনাভাই’রাস সংক্রমণ থেকে বাঁচতে হলে ঘরে থাকুন। আর যদি বের হতেই হয়, তাহলে সব ধরনের সুরক্ষা নিয়ে বের হন। গত দেড় মাস ধরে এটা অ’ভ্যাস ক’রা’নোর চেষ্টা করা হচ্ছে। অনে’কেই সচেতন হচ্ছে, আ’বার কেউ কেউ হচ্ছে না।

তিনি বলেন, এখন কি কা’উকে পি’টিয়ে এসব বিষয় মানাবে নাকি? অতীতে দেখা গিয়েছিল, বিভিন্ন সরকার বিশেষ পরিস্থিতিতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা’কারী বাহিনী দিয়ে পিটিয়েছে। এমনকি ভারতেও এবার পেটানো হয়েছে। কিন্তু আম'রা কাউকে এমন নির্দেশ দিইনি। লাঠি দিয়ে পেটানো হয়নি। মানুষকে বোঝা’নো হয়েছে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, শুধু বাংলাদেশ নয়, পৃথিবীর কোনো দেশেরই এ ভা’ইরাস মোকাবেলায় প্রস্তুতি ছিল না। ইউরোপ, আমেরিকার তুলনায় আ’মাদের অবস্থান ভালোই আছে। সরকার এ দেড় মাস ব্য’বহার করেছে নিজের ক্যাপাসিটি বৃ’দ্ধি করার জন্য। টেস্ট বৃদ্ধি পাচ্ছে, আলাদা হাস’পাতাল তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন সুবিধা আম’রা বৃদ্ধি করেছি। সরকার তার চেষ্টা করছে। এখানে আমা’দেরও চেষ্টা করে যেতে হবে।

ফারুক খান বলেন, আমা’দের দেশে ঈদ’কেন্দ্রিক একটা বড় ব্যবসা হয়। গত রমজানের ঈদেও প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার ব্যবসা হয়েছিল। এ ব্যবসাটা শুধু ব্যবসায়ীদের হয় না, সবাই সু’বিধা ভোগ করে। তাই সবার কথা চিন্তা করে সরকার বলছে সামনে ঈদ আছে। তোম'রা খুলতে পার। তবে সেটা অবশ্যই সুরক্ষা নিশ্চিত করেই খুল’তে হবে। ক্রেতা-বিক্রেতা উভ’য়কেই এ সু’রক্ষা ব্যবস্থা নিতে হবে। আমি মনে করি, সরকার এটা ভালো ক’রেই পর্য’বেক্ষণ করছে।

তিনি বলেন, আমি মনে করি আগা’মী দুই থেকে তিন বছর পৃথিবীতে স্বাভাবিক জীবনযাপন হবে না। মানুষ বের হবে মাস্ক পরে, সা’মাজিক দূরত্ব বজায় রাখবে। সবাইকে অ্যা’ডজা’স্টমেন্ট করে চলতে হবে। এখন আমা’দের প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে জীবনকে আরো সহজ করতে হবে। এরই মধ্যে আমা’দের চলতে হবে, অগ্রস’র হতে হবে। অর্থ’নৈতিক কমকাণ্ড চালু করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *