এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তা করায় এসআই হাসানের যে শাস্তি হল!

সিলেট নগরের বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নি’র্যাতনে রায়হান আহম’দের মৃ’ত্যুর ঘটনায় এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তা ও সিসি ক্যামেরার ফুটেজ (আলামত) নষ্ট করায় এসআই হাসান উদ্দিনকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

তাকে এসএমপির পু’লিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। বুধবার বিকাল ৫টার দিকে সিলেট মেট্রোপলিটন পু’লিশের (এসএমপি) উপকমিশনার উপকমিশনার (ডিসি-উত্তর) আজবাহার আলী শেখ তাকে বরখাস্ত করেন।

এসএমপির অ’তিরিক্ত উপকমিশনার (গণমাধ্যম) বিএম আসরাফ উল্লা তাহের এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। প্রসঙ্গত, গত ১১ অক্টোবর সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে টাকার জন্য অমানবিক নি’র্যাতন করা হয় নগরীর নেহারিপাড়া এলাকার বাসিন্দা রায়হানকে (৩৩)।

ভোরে তার মৃ’ত্যু হয়। এ ঘটনায় রোববার দিবাগত রাতে সিলেট কোতোয়ালি থা’নায় অ’জ্ঞাতনামা আ’সামিদের বি’রুদ্ধে একটি মা’মলা করেন নি’হত রায়হানের স্ত্রী’ তাহমিনা আক্তার তান্নি।

মা’মলায় নি’হতের স্ত্রী’ উল্লেখ করেন, বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পু’লিশি নি’র্যাতনেই রায়হানের মৃ’ত্যু হয়েছে। গত ১০ অক্টোবর রাতে বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে নি’র্যাতনের ত’দন্তে গত ১১ অক্টোবর এসএমপির উপকমিশনার (ডিসি-উত্তর) আজবাহার আলী শেখের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

বন্দরবাজার ফাঁড়িতেই পু’লিশের নি’র্যাতনে রায়হানের মৃ’ত্যুর বিষয়ে প্রাথমিক ত’দন্তে প্রমাণ পায় ত’দন্ত কমিটি। ত’দন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, নি’র্যাতনে সরাসরি অংশগ্রহণের জন্য বন্দর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন কনস্টেবল তৌহিদ মিয়া, টিটু চন্দ্র দাস ও হারুনুর রশীদকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আর রায়হানকে ধরে ফাঁড়িতে আনার জন্য বন্দরবাজার ফাঁড়ি থেকে প্রত্যাহার করা হয় এএসআই আশেক এলাহী, কুতুব আলী, কনস্টেবল সজীব হোসেনকে। এর মধ্যে এসআই আকবর হোসেন পালিয়ে গেলেও বাকি ছয়জন পু’লিশ লাইনে কড়া নিরাপত্তা হেফাজতে ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!