Breaking News
Home / শিক্ষা / প্রাথমিকের উপবৃত্তির ১০০ কোটি টাকা দিয়েও যে কারনে ফেরত নিচ্ছে সরকার!

প্রাথমিকের উপবৃত্তির ১০০ কোটি টাকা দিয়েও যে কারনে ফেরত নিচ্ছে সরকার!

Advertisement
Advertisement

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দেওয়া উপবৃত্তির টাকা নিয়ে চলছে তুলকালাম কাণ্ড। ২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকে এই উপবৃত্তির টাকা দেয়া শুরু হয় ‘প্রাথমিক শিক্ষার জন্য উপবৃত্তি প্রকল্পের (তৃতীয় পর্যায়)’ আওতায়। কিন্তু উপবৃত্তি নিয়ে শুরু হয়েছে জটিলতা। অনেক শিশুর মা টাকা তুলছেন না। ফলে প্রায় ১০০ কোটি টাকা জমে গেছে।







ওই টাকা এখন তুলে নিয়ে সরকারি কোষাগারে জমা দিতে চাইছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সে লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে অর্থ ফেরত দিতে বলে চিঠি দিয়েছে মন্ত্রণালয়। অর্থ মন্ত্রণালয়ও একই নির্দেশ দিয়েছে। অথচ মায়েরা কেন টাকা তুলছেন না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের বক্তব্য, ১০ বছরের আগে এ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দেয়ার সুযোগ নেই।







প্রাথমিকের উপবৃত্তি প্রকল্পের পরিচালক ইউসুফ আলী বলেন, ‘দীর্ঘদিন পড়ে আছে টাকা’টা। তুলছে না কেউ। হয়তো এই নম্বরগুলো অনেক মা ব্যবহার করছেন না। আবার অনেকে টাকা তুলতে আগ্রহী নন।’ তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইস’লাম বলেন, ‘মায়েরা কেন টাকা তুলছেন না, তা খতিয়ে দেখা উচিত।’







জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক কোটি ৩০ লাখ শিক্ষার্থীকে এই উপবৃত্তি দেয়া হয়। ২০১৬-১৭ অর্থবছর থেকে প্রকল্পটি শুরু হয়। এর আওতায় প্রাথমিকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত মাসে ১০০ টাকা ও প্রাক-প্রাথমিকে ৫০ টাকা করে উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছে। তিন মাসে এক কিস্তি ধরে বছরে চার কিস্তিতে টাকা শিওর ক্যাশের মাধ্যমে অভিভাবকের অ্যাকাউন্টে পাঠানো হয়। কিন্তু অনেক অভিভাবক টাকা তুলছেন না।







এ বিষয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম-আল-হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘যেসব অভিভাবক দীর্ঘদিন উপবৃত্তির টাকা তুলছেন না, তাদের মেসেজ দিয়েছি। তারপরও টাকা তোলেননি। এ কারণে আম'রা টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিতে চাচ্ছি।’ এসময় এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমা’র মনে হয়, সচ্ছল পরিবারের মায়েরা এ টাকা তোলেননি।’







সূত্র জানায়, প্রকল্প পরিচালক ইউসুফ আলী গত ১৬ জুন দেশের সব থা’না/উপজে’লা শিক্ষা কর্মক’র্তাদেরকে চিঠি দেন। তাতে বলেছেন, কিছু অভিভাবকের মোবাইল অ্যাকাউন্টে উপবৃত্তির অর্থ অলসভাবে ফেলে রাখা হয়েছে, তোলা হচ্ছে না। সেগুলো প্রকৃত সুবিধাভোগীদের নয় বলে মনে হয়। ২৫ জুনের মধ্যে টাকা উত্তোলনের নির্দেশ প্রদানের অনুরোধ করা হলো। এরপর অনুত্তোলিত অর্থ কোষাগারে জমা করা হবে, কোনো দাবিনামা গ্রহণ করা হবে না।’







এদিকে প্রায় ১০০ কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিতে এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে দু’দফা চিঠি পাঠিয়েছে মন্ত্রণালয়। কিন্তু জবাব না পাওয়ায় অর্থ মন্ত্রণালয়কে জানায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। পরে গত ১৩ আগস্ট অর্থ মন্ত্রণালয়ও তিন কার্যদিবসের মধ্যে টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিতে নির্দেশ দেয়। পরে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক অর্থ ছাড়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি চায়।







তবে বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়ে দিয়েছে, এ টাকা কোষাগারে জমা দিতে ১০ বছর অপেক্ষা করতে হবে। কারণ টাকা অ্যাকাউন্টে চলে গেছে। ১০ বছরের মধ্যে অভিভাবক মায়েরা টাকা না তুললে সরকারি কোষাগারে জমা দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক।






Advertisement
Advertisement

Check Also

করো’নায় বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্কুল প্রাঙ্গণে লালশাক চাষ করছেন প্রধান শিক্ষক

Advertisement Advertisement করো’না ভাই’রাসের মহামা’রির কারণে গত আট মাস যাবত বন্ধ রয়েছে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!