দশ মাসের আবির করো’না আক্রান্ত অতঃপর যা হল – OnlineCityNews

দশ মাসের আবির করো’না আক্রান্ত অতঃপর যা হল

দেশে প্রতি’দিনই যখন ক’রোনাভা’ইরাসে (কোভিড-১৯) সংক্র’মিত মানুষের সংখ্যা বা’ড়ছে, তখন চট্টগ্রা’মে আশার দিশাও দেখা যাচ্ছে। ক’রোনা’কে জয় করে বা’ড়ি ফিরেছে দশ মাস বয়’সী শিশু আবির। এ নিয়ে দুই চি’কিৎসক’সহ চট্ট’গ্রামে সু’স্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন ১৭ জন।

শ’নিবার (২ মে) দুপুর দে’ড়টার দিকে শিশু আ’বি’রকে তার পরি’বা’রের হাতে তুলে দেয়া হয় বলে জানান চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপা’তালের আবাসিক চিকিৎসক জা’মাল মোস্তফা। তিনি বলে’ন, ‘মাত্র ১০ মাসে’র শিশু, সেই কিনা ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত! তার চিকিৎসা কী’ভাবে হবে, তাই নি’য়ে চি’ন্তায় পড়ে গি’য়েছিলাম সবাই। তবে আল’হামদু’লিল্লাহ, গতকাল তার দ্বিতী’য় নমুনা পরী’ক্ষাটিও নেগে’টিভ আসায় আজ আবি’রকে হাসপাতা’ল থেকে ছা’ড়পত্র দেয়া হয়েছে।’

এর আগে গত ম’ঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) চট্টগ্রামের ফৌ’জদা’রহাটে অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টি’টিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফে’কশাস ডিজি’জেসে (বিআইটিআইডি) চন্দনাইশের শিশু আবিরের ক’রোনা পজে’টিভ স’বাইকে হত’বাক করেছিল।কে ছড়া’লো আ’বিরের শরী’রে করো’না’র বিষ? এ বিষয়টি হ’য়তো র’হস্যই থকে যাবে। ২০ এপ্রি’ল শিশু আ’রের করো’না পজে’টিভ রিপোর্ট পাওয়ার পর তার পরি’বা’রের বাকি সদ’স্যদেরও নমুনা প’রী’ক্ষা ‘করা হয়। কিন্তু তারা সবাই ক’রোনা নে’গে’টিভ। এমনকি চন্দ’নাইশে তা’দের গ্রামেও কোনো করো’না আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়নি। তাই প্রশ্নটা থেকেই যায়, কে ছড়া’লো আবিরের শ’রী’রে’ ক’রোনার বিষ?

চট্টগ্রাম জে’নারেল হাস’পাতালের আবা’সিক চিকিৎসক জামাল মো’স্তফা বলেন, ‘এটা বড় রহস্য। তার পরি’বারের কেউ করো’না’য় আ’ক্রা’ন্ত নন। পরি’বারের কারও বিদেশ ফেরতেরও ইতি’হাস নেই। অথচ মা’ঝখান থেকে ১০ মাসের একটা শিশু ক’রোনা’য় আ’ক্রা’ন্ত!’ ‘তবে ধা’রণা করছি, এর আ’গে তাকে যখন চ’ট্টগ্রাম মে’ডিকেল কলেজ হা’সপাতালে নি’উমো’নিয়ার চিকিৎসার জন্য আনা হ’য়েছিল তখন হয়তো কো’নোভা’বে সংক্র’মিত হয়েছে,’- বলেন জামাল মো’স্তফা।

দুঃসম’য়ে আ’লে রেখেছি’লেন মমতা’ময়ী মা শিশু আবির যখন ক’রো’নায় আ’ক্রান্ত’ তখন মা রুমা আ’ক্তার’কে সবাই পরামর্শ দিয়ে’ছিল শুধু দুধ পান ক’রিয়ে যেন নিজে নিরা’পদে থাকে। কিন্তু ক’রোনায় আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার ভয় থাকা সত্ত্বেও মা রুমা একবা’রের জন্যও শিশু আবি’রের কাছ থেকে সরে জাননি। বরং করো’না আক্রান্ত শি’শুকে নিয়ে ছিলেন জেনারেল হাসপাতা’লের করোনা ওয়ার্ডেই। তবে পুরো ১২ দিন আবি’রের সঙ্গে থাকলেও মা ‘রুমার নমুনাও ক’রো’না নে’গে’টিভ এসেছে কাল।

চিকিৎসক জা’মাল মোস্তফা বলেন, ‘ছে’লেকে নিয়েই হাস’পা’তালে ছিলেন রু’মা। ক’রোনা’র মতো ভাই’রা’সে সং’ক্রমি’ত হওয়ায় ঝুঁ’কি থাকা স’ত্ত্বেও তিনি এক মুহূ’র্তের জন্যও সন্তা’নকে একা রাখে’ননি। এটাই আমা’দের পরিবার, বাঙা’লি মা’য়েরা এমনই! প্রসঙ্গত, চ’ট্টগ্রামে এখন পর্যন্ত ৭৩ জন ক’রোনা’য় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে’ছেন। এ ছাড়া দেশের বিভন্ন এলা’কায় শ’না’ক্ত আরও পাঁচজন চট্টগ্রা’মে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এখন পর্যন্ত চট্টগ্রা’মে এক শিশু, দুই বৃদ্ধ ও দুই না’রীসহ মোট ছয়জন ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত হয়ে মা’রা গেছেন। এ ছাড়া আ’ইসোলে’শনে এখন পর্যন্ত মা’রা গেছে’ন ছ’য়জন। মৃ’ত্যু’র পর তাদের পাঁচজ’নের নমু’না সংগ্রহ করে প’রীক্ষা’য় ক’রো’না নে’গেটি’ভ পাওয়া যায়। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফি’রে’ছেন মোট ১৭ জন না’রী-পুরুষ। ৪৮ জন আ’ইসোলে’শনে ভর্তি আছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *