Breaking News
Home / সারা দেশ / অবিশ্বাস্য, বুকে ছু’রি নিয়ে ১২ ঘণ্টায় চার হাসপাতাল ঘুরতে হয়েছে, অতঃপর যা হয়েছে সেই নারীর

অবিশ্বাস্য, বুকে ছু’রি নিয়ে ১২ ঘণ্টায় চার হাসপাতাল ঘুরতে হয়েছে, অতঃপর যা হয়েছে সেই নারীর

Advertisement

এক কথায় অবিশ্বাস্য! বেহে’শত আরার বয়স ৫০। মাঝ বয়সে সাবেক স্বামীর হা’মলার শি’কার হয়েছেন তিনি। বুকে লম্বা ছু’রি বসিয়ে দিয়েছেন সাবেক স্বামী। বুকে-পিঠে ছু’রি নিয়ে এক হাসপাতা’ল থেকে আরেক হাসপাতা’লে ছুটেছেন বেহেশত আরা। সকাল ৯টা থেকে রাত রাত ৯টা।







দীর্ঘ ১২ ঘণ্টা ধরে ছু’রি বি’দ্ধ অবস্থায় এক হাস’পাতাল থেকে আরেক হাসপাতা’লে ছু’টতে হয় তাকে। উপজে’লা প’র্যায়ের হাসপাতা’ল থেকে জে’লা হাসপাতা’ল। জে’লা থেকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’ল। এরপর ঢাকা মেডি’কেল কলেজ হাসপাতা’ল। অবশেষে রাত ৯টায় ঢাকা মে’ডিকেল কলেজ হাস’পাতালে ভ’র্তি হন। বুকে ও পিটে ছু’রি নিয়ে অবিশ্বাস্য য’ন্ত্রণা স’হ্য করতে হলো কি’শোরগ’ঞ্জের এই নারীকে।







পারিবারিক বিরোধের জে’রে সা’বেক স্বা’মীর ছু’রিকাঘা’তে গু’রুতর আ’হত হয়েছেন বে’হেশত আরা ও তার ছো’ট বোন আনু’ফা আ’ক্তার (৪৫)। বুধবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজে’লার নিয়া’মতপুর ইউনি’য়নের মধ্যপা’ড়া এলা’কায় এ ঘটনা। বে’হেশত আ’রা ক’রিম’গঞ্জ উপজে’লার নি’য়াম’তপুর ইউ’নি’য়নের বা’হেরচর গ্রা’মের মৃ’ত দীন ইস’লামের ছে’লে। হা’মলাকা’রী মো. জিল্লু’র রহমান একই এলাকার কেরামত আলী ওরফে গতা মিয়ার ছেলে।







এলাকাবাসী জানায়, ১০ বছর আগে বেহেশত আরার স্বামী মা’রা যান। স্বা’মীর মৃ’ত্যুর কয়েক বছর পর বেহে’শত আরার সঙ্গে জি’ল্লুর রহমানের গো’পনে বি’য়ে হয়। কিন্তু তা’দের ঘর-সংসার হয়নি। ক’য়েক বছ’র আগে বি’য়ের বিষয়টি প্র’কাশ হলে দুই পরিবারের মধ্যে দ্ব’ন্দ্ব তৈ’রি হয়। জ’মিজ’মা নিয়ে দুই প’রিবারের ম’ধ্যে আগে থে’কে মা’মলা ও বি’রোধ চলছিল।







এ অ’বস্থা’য় গত মাসে জি’ল্লুর রহমা’নকে তা’লাক দেন বে’হেশত আরা। এর’পর স্ত্রী’র সম্প’ত্তি থেকে ব’ঞ্চিত হওয়া’য় ক্ষু’ব্ধ হ’ন তিনি। প্রতি’শো’ধ নে’য়ার জন্য পূর্ব’পরি’কল্পনা অনু’যায়ী বুধবার বেহেশত আরার ওপর হা’মলা চালান। পু’লিশ জা’নায়, বুধবার সকালে মাম’লার কাজে একটি অটো’রিকশাযোগে বা’ড়ি থেকে কিশো’রগঞ্জে যা’চ্ছিলেন বেহেশত আরা ও ছো’ট বোন আ’নুফা আক্তার।







সকাল ৯টার দিকে নি’য়ামতপুর মধ্য’পাড়া এলা’কায় রিক’শা থামি’য়ে বেহেশত আরার ওপর হা’মলা চালান জি’ল্লুর রহমান। এ সময় ছোট বোন প্র’তিরোধের চে’ষ্টা করলে ছু’রিকাঘাত করেন জিল্লুর। আনুফাকে আ’হত করার পর এক’ই ছু’রি বেহে’শত আরার বু’কে ব’সিয়ে দেন জি’ল্লুর রহ’মান। ছু’রিটি বুকে ঢু’কে পি’ট দিয়ে বে’রিয়ে যায়।







ছু’রি বিদ্ধ অব’স্থায় বেহে’শত আরা ও আ’হত আনুফা বেগমকে উদ্ধার করে করি’মগঞ্জ উপ’জে’লা হাস’পাতালে পা’ঠানো হয়। সে’খান থে’কে তা’দের কি’শোর’গঞ্জ জে’নারেল হাসপা’তালে নেয়া হয়। দী’র্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে দুই বো’নকে কিশো’রগ’ঞ্জ হাস’পাতালে নেয়া হলে ছোট বো’নকে চিকিৎসা দেয়া হলেও বড় বো’নের ছু’রি খো’লার সা’হস পাননি চিকিৎসক।







এ অবস্থায় বেহেশত আরাকে পাঠনো হয় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে। বিকেল ৩টার মধ্যে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে নেয়া হয় তাকে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর বিকেলে তাকে আশ’ঙ্কাজনক অবস্থায় পাঠানো হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে। রাত ৯টার দিকে তাকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছে ঢাকা মেডিকেলে।







বেহেশত আরার সঙ্গে থাকা ছেলে বাহাদুর মিয়া বলেন, আমা’র মা এখনও বেঁ’চে আছেন। হাসপাতা’লে তাকে চিকিৎসা দেয়ার যাবতীয় প্র’স্তুতি চলছে। তাকে এখানে ভর্তি করা হয়েছে। বর্ব’রোচিত এ হা’মলার ঘটনায় ক্ষু’ব্ধ এলাকাবাসী। তারা জি’ল্লুর রহমানকে অবিলম্বে গ্রে’ফতারে’র দাবি জানিয়েছেন।







খবর পেয়ে পু’লিশ ঘট’নাস্থ’ল পরি’দর্শন করেছে। জমি ও পারিবারিক বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পু’লিশ। করি’মগঞ্জ থা’না পু’লিশের ভা’রপ্রাপ্ত ক’র্মকর্তা (ওসি) মো. মমিনুল ইস’লাম বলেন, ঘটনার’ পর থেকে জিল্লুর রহমান পলা’তক। তা’কে আট’কের জন্য অভি’যান চলছে। জি’ল্লুর ঢাকায় অটো’রিকশা চা’লান। মঙ্গলবার ঢাকা থেকে বাড়ি এসে’ছেন তিনি। তা’লাক দেয়া ও জমি’জমা এবং পারিবারি’ক বিরোধে’র জে’রে এ ঘ’টনা ঘটে।






Advertisement
Advertisement

Check Also

হিজড়াদের কখনোই তিনটি জিনিস দেবেন না, দিলে আপনার সর্বনাশ হবেই

Advertisement শহরের ব্যাস্ত সময় রাস্তা ঘাটে, বাসে ট্রেনে, ভিড়ের মাঝে তাদের দেখা যায়। তারা রঙিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!