আজ দেশের কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনের যে বিশেষ দিন – OnlineCityNews

আজ দেশের কিংবদন্তী কণ্ঠশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনের যে বিশেষ দিন

দেশের কিংব’দন্তী কণ্ঠশি’ল্পী সাবিনা ই’য়াসমিন। প্রায় চার দশ’কেরও বেশি সময় ধরে দেশের গানসহ গানের নানা ধারা’য় সফ’ল পদ’চার’ণা তার। তার ক’ণ্ঠে সুবা’স ছড়ি’য়েছে উচ্চা’ঙ্গ, ধ্রু’পদ এবং লোক’সংগীত থে’কে শুরু করে আধু’নি’ক বাংলা গানও। তবে সিনে’মা’র গানে সাবিনার কণ্ঠ’ ঢালি’উডের গ’র্ব হয়ে আছে।

আজ এই কিংব’দন্তি’র জন্ম’দিন। প্রতি বছরের ম’তো এবারেও ভক্ত-অ’নুরা’গী”দের শুভে’চ্ছা’য় দিনটি শুরু হয়েছে সাবিনা ইয়াসমিনের। দিনটিকে উপলক্ষ করে সাবিনা ইয়াসমিনের পরিবার, বন্ধু-স্ব’জনে’রা তাকে শুভেচ্ছা জা’নিয়ে’ছেন। শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সংগী’তাঙ্গ’নের মানুষেরা। সেই’সঙ্গে ফেসবু’কের মতো জনপ্রিয় সামা’জিক যোগা’যোগ মাধ্য’মে সা’বি’নার ভক্ত-অনুরা’গীরা তাকে শুভেচ্ছা জানি’য়ে স্ট্যাটা”স-ছবি পোস্ট ক’রেছেন।

জ’ন্ম’দিন নিয়ে গণ’মাধ্য’মে সাবি’না ইয়া’স’মিন বলেন, `জন্ম’দিনে আ’ব্বা-আ’ম্মাকে খুব মনে পড়ে। তাদে’র খুব মিস করি। আমা’র বো’ন’দেরও মিস করি। সবার কাছে দোয়া চাই তাদের জন্য। আমা’র জন্যও দোয়া করবেন। যেন সুস্থ থাকি। সবার ভা’লো’বাসা আমাকে প্রেরণা যুগায়। এই ভা’লোবা’সায় আব’দ্ধ থাক’তে চাই আ’মৃ’ত্যু।`

১৯৫৪ সালের ৪ সেপ্টেম্বর সা’ত’ক্ষী’রা জে’লা’য় জ’ন্মগ্র’হণ করেন সা’বিনা ইয়াসমিন। তার বাবার নাম লুৎফর রহমান ও মা বেগম মৌ’লুদা খাতুন। সাবিনা ইয়া’সমি’নরা পাঁচ বোনের মধ্যে চার বো’নই গান ক’রে’ছেন। তারা হলেন- ফ’রিদা ইয়াস’মিন, ফওজি’য়া খান, নীলু’ফার ইয়াসমিন এবং সা’বিনা ইয়াস’মিন। দাম্প’ত্য জীব’নে সা’বিনা ই’য়াসমিন এক কন্যা ফাই”রুজ ইয়াসমিন ও এক পুত্র শ্রা’ব’ণের জননী।

প্রসঙ্গত, বড় বোন ‘ফরিদা ইয়া”সমিন যখন গান শিখ’তেন দুর্গা’প্র’সাদ রা’য়ের কাছে তখন ছোট্ট সাবি’নাও উপ’স্থিত থাকতেন। পর’বর্তী’তে ও’স্তাদ পি সি গো’মেজে’র কাছে একটানা ১৩ বছর তা’লিম নি’য়েছেন। মাত্র ৭ বছর বয়সে স্টেজ প্রোগ্রা’মে অংশ নেন। ছোটদের সংগঠন খে’লাঘ’রের স’দস্য হিসেবে রেডিও ও টেলি’ভি’শনে গান গান নিয়মিত।

প্রয়াত ব”রেণ্য সুর’কার-সংগীত পরিচা’লক রবিন ঘো’ষের সংগী’ত পরিচা’লনা’য় এহ’তে’শাম’ পরিচা’লিত ‘ন’তুন সুর’ সিনেমাতে ১৯৬২ সালে শি’শুশিল্পী হিসেবে প্রথম গান করেন। তবে ১৯৬৭ সালে আমজাদ হোসেন ও নূরুল হক বাচ্চু পরি’চালিত ‘আ’গু’ন নিয়ে খেলা’ সিনেমাতে আল’তাফ মা’হমুদের সংগীত পরিচালনায় ‘মধু জোছ’না দী’পালি’ গানটি গাওয়া”র মধ্য দিয়ে প্লে’ব্যাক গায়িকা হিসেবে আ’ত্ম’প্র’কাশ করেন।

বরেণ্য এই সংগী’ত শিল্পী ১৯৮৪ সালে একু’শে পদক, ১৯৯৬ সালে স্বাধীনতা পদকসহ সর্বোচ্চ ১৩ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পু’রস্কা’র লা’ভ করেন। ১৯৭৫ সালে প্র’মো’দকার (খান আতাউর রহমানের ছদ্ম নাম) পরিচালিত ‘সুজন সখী’ সি’নে’মাতে গান গাওয়া’র জন্য প্রথম জাতীয় চল’চ্চিত্র পুর’স্কার লা’ভ করেন। ‘দীর্ঘ সংগী’ত জী’বনে প্রায় ১৬ হাজারেরও বেশি গান গে’য়েছেন বাংলা গানের এই ন’ক্ষত্র!

Leave a Reply

Your email address will not be published.