যেভাবে বেকার তরুণ-তরুণীদের আড়াই কোটি টাকা লুট করলেন – OnlineCityNews

যেভাবে বেকার তরুণ-তরুণীদের আড়াই কোটি টাকা লুট করলেন

গণমা’ধ্যমে’র সা’ইন’বোর্ড ঝু’লিয়ে ও সর’কারের উ’চ্চপ’দস্থ ক’র্মক’র্তাদের সিল ব্যবহার করে বিভি’ন্ন সরকারি-বেস’রকা’রি প্র’তি’ষ্ঠানে চাকরি দেয়ার নামে অ’র্থ হা’তিয়ে নেয়ার অ’ভিযো’গে সংঘ’বদ্ধ চক্রের দুই সদস্যকে আ’ট’ক করা হয়েছে।মঙ্গ’লবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকাল থেকে স’ন্ধ্যা পর্যন্ত রাজ’ধানীর মগ’বা’জার ও পুরা’নাপল্ট’নে চক্রটির কার্যালয়ে অ’ভিযা’ন চালি’য়ে তা’দের আ’ট”ক করে রেব-৩ এর একটি দল।

আ’ট’করা হলেন- নিউজ ২১ টিভি ও এবি চ্যানে’লের মা’লিক মো. শহিদুল ইস’লাম ও সাপ্তাহি’ক সম’য়ের অ’প’রাধ চ’ক্রে’র মালিক আ’মেনা খাতু’ন।ওই দুই অ’ফিস সিল’গা’লা করে’ছে রে’বের ভ্রা’ম্যমাণ আ’দাল’ত। এ সময় ওই অফিস থেকে বিপুল পরি’মাণ ভু’য়া নি’য়োগ’পত্র ও জাল সিল জ’ব্দ করা হয়েছে।

অ’ভিযানে ভ্রাম্য’মাণ আ’দালত পরিচালনা করেন রেব-৩ এর নির্বাহী ম্যা’জিস্ট্রে’ট পলা’শ কুমা’র বসু।রেব বলছে, অনু’মোদ’নহীন টিভি চ্যানেল ও পত্রিকার সাই’ন’বোর্ডে ১০ থেকে ১২টি সরকারি প্র’তিষ্ঠানে চা’করি দেয়ার প্র’লো’ভনে আর্থিক বড় ধর’নের প্রতা’রণা করেছে এই চ’ক্রটি।

নিউজ ২১ টিভি, এবি চ্যানে’ল ও সা’প্তাহি’ক সম’য়ের অ’প’রাধ চ’ক্র নামের ভু’য়া টিভি চ্যানেল ও পত্রি’কার নাম ব্যবহার করে এক হাজার বেকার যু’বকের কাছ থেকে আড়াই কোটি টাকা হা’তিয়ে নিয়েছে চক্রটি।অ’ভিযান শেষে রেবের নির্বাহী ম্যা’জিস্ট্রে’ট পলা’শ কুমা’র বসু বলেন, অনুমো’দ’নহীন টিভি চ্যানেল ও পত্রিকার সাই’নবো’র্ডে স্বাস্থ্য বিভাগ, কারি’গরি ও যোগা’যোগ প্রযু’ক্তি বিভাগ,

মুগদা জেনা’রেল হা’সপাতা’ল, বিআইড’ব্লি’টিএ ও বাংলাদেশ পরি’সংখ্যা’ন ব্যু’রো’তে’ চাকরি দে’য়ার নামে প্র’তা’রণা করে চক্রটি এক হাজার বে’কার যু’বকে’র কাছ থে’কে প্রায় আড়াই কোটি টাকা হাতিয়ে নি’য়েছে।তিনি বলেন, সরকারি ওই প্রতিষ্ঠানগুলোতে যখন আসল নি’য়ো’গ বি’জ্ঞ’প্তি দেয়া হতো, তখন চক্রটি তাদের অফি’সের ঠিকা’না দিয়ে তাদের মতো করে বি”জ্ঞ’প্তি দিতো। তাদের দা’লাল নেট’ওয়া’র্কের মাধ্য’মে হা’জার হাজার বেকার যুব’ক’কে টা’র্গেট ক’রতো।

এমনকি তারা স্বা’স্থ্য’সেবা বিভা’গের উ’পস’চিব ও তথ্য এবং যোগা’যোগ প্রযু’ক্তি বি’ভা’গের যুগ্ম সচিবের সিল জালি’য়াতি করে নিয়ো’গপত্র দিতো, যা ভু’য়া।পলা’শ কুমা’র বসু আরও ব’লেন, ব্রাই’ট অ্যা’সো’সিয়েট লিমিটে’ড নামের একটি প্রতি’ষ্ঠা’নের প্যাডে তারা নিয়োগ বি’জ্ঞপ্তি’গুলো’ দিতো।

কিন্তু অ্যা’সোসি’য়েট লি’মিটেড না’মের কোনো প্রতি’ষ্ঠানের অ’স্তিত্ব নেই। সা’প্তাহিক সম’য়ের অ’প’রাধ চক্রের অফিস থেকেই এই প্রতা’রণামূল’ক কার্য’ক্রম চালা’নো হতো এবং ভুক্ত’ভো’গীরা টাকা লেন’দেন করেছেন এই অফি’সেই। অ’ভিযা’নে দেখা যায়, তাদের অফি’সের’ ডা’য়েরি’তে লেখা কবে কার কাছ থেকে কত টাকা নিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *