আজও সুশান্ত সিং রাজপুতের অপেক্ষায় পথ চেয়ে বসে আছে পোষা কুকুর ফাজ, আবেগঘন ভিডিও তোলপার মিডিয়া – OnlineCityNews

আজও সুশান্ত সিং রাজপুতের অপেক্ষায় পথ চেয়ে বসে আছে পোষা কুকুর ফাজ, আবেগঘন ভিডিও তোলপার মিডিয়া

গত ১৪ই জুন সুশান্ত সিং রাজপুত আমা’দের সকলকে ছেড়ে চলে যান না ফেরার দেশে। তার এই অকাল প্রয়া’ণে দেশবাসী শো’কাহত। সুশান্তের মত একজন প্রতিভাবান অভিনেতার এভাবে চলে যাওয়াটাকে কেউ মেনে নিতে পারছে না।

আজ ২ মাসের ও বেশি হয়েছে সুশান্তের অনুপস্থিতি। সুশান্ত ঘটনায় দিনের পর দিন নতুন রহস্যের উদ্ঘাটন হচ্ছে। পরিবারের সহমতি ও দেশবাসীর অনুরোধে মাম’লার ভার সিবি’আই এর হাতে যায়। ২ মাস পরেও সুশান্ত কে ভুলতে পারছেনা তার অনুরাগীরা। সেই সাথে রয়েছে সুশান্তের অনুগত্য ফাজ।

পরিবার বর্গ, বন্ধু বান্ধব ছাড়াও সুশান্তের খুব কাছের একজন ছিল তার একমাত্র পোষা কুকুর ফাজ। সুশান্তের প্রয়া’ণের পর সেই ফাজ সব চেয়ে বেশি মর্মা’হত ছিল। প্রভুর অপেক্ষায় কখনও ব্যালকনি কখনও দরজার কাছে বসে থাকত।

এও দেখা গিয়েছে সুশান্তের ছবি একটি ফোনের ওয়ালপেপার রাখা আছে আর সেই ফোন জড়িয়ে ধরে সে কেঁ’দেই চলেছে এমনকি সে খাওয়া দাওয়াও করেনি। অনেকদিন তার কোনো খবর ছিল না। সম্প্রতি সুশান্তের ভাগ্নি ফাজের সাথে একটি ভিডিও শেয়ার করে তার কথা লিখেছে।

অভিনেতা সুশান্তের ভাগ্নি ভিডিওটি শেয়ার করে ক্যাপশনে লিখেছেন যে, ‘ফাজের চোখ দুটো এখনো আশা নিয়ে দরজার  দিকে তাকিয়ে থাকে।’ সেই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার সাথে সাথে সুশান্ত অনুরাগীদের মধ্যেও পড়েছে শো’কের ছায়া।

সুশান্তকে হারিয়ে ফাজের দুঃ’খ দেখে নিজেদের চোখের জল সামলাতে পারছেন না সুশান্ত অনুরাগীগন। সুশান্তের চলে যাবার পর ফাজের সাথে সুশান্তের অনেক ভিডিও শেয়ার হয়েছে। সেই সব ভিডিও থেকে বোঝা গিয়েছে ফাজ সুশান্তকে ছাড়া কোথাও থাকতেন না।

যে সুশান্তকে ছাড়া এক মুহূর্ত থাকতে পারত না সেই ফাজ সুশান্তের প্রয়া’ণের দিন কোথায় ছিল তা নিয়ে এখনো কিছুই জানা যায় নি। সুশান্তের প্রয়া’ণের পরের যে ছবিটি ভাইরাল হয়েছিল তাতে সুশান্তের গ’লায় ক্ষ”ত ছিল যে ক্ষ”তটি ফাজের চেনের বলে দাবি করেছেন অনেকেই।

সুশান্তের অকাল প্রয়া’ণের পর ফাজকে সুশান্তের পাটনা বাড়িতে নিয়ে গিয়ে রাখা হয়েছে। প্রিয় ফাজ তার প্রভু কে হারিয়ে শো’কাহত, কিছুতেই মেনে নিতে পারে নি সেও। ফাজ আজও অপেক্ষা করে আছে সুশান্তের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *