যে কারনে শিপ্রার করা মা’মলা গ্রহন করেননি পুলিশ – OnlineCityNews
Breaking News
Home / সারা দেশ / যে কারনে শিপ্রার করা মা’মলা গ্রহন করেননি পুলিশ

যে কারনে শিপ্রার করা মা’মলা গ্রহন করেননি পুলিশ

Advertisement

পু’লিশের গু’লিতে নি’হত অব’স’রপ্রাপ্ত  মে’জর সিনহা মো. রাশেদ খানের সহযোগী শিপ্রা দেব’নাথের মা’মলা আবেদন গ্রহণ করেনি ক’ক্সবাজার সদর মডেল থা’না পু’লিশ। মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) রাত সাড়ে ১১টার দিকে শিপ্রা দেব’নাথ ও সা’হেদুল ইস’লাম সিফা’তসহ এক আইন’জীবীকে নিয়ে থা’নায় যান।

ঘট’নাস্থল রামু থা’না এলাকায় হওয়াতে মাম’লাটি গ্রহ’ণে অ’স্বী’কৃতি জানা’য় সদর মডেল থা’নার ওসি খায়রুজ্জামান। মা’মলাটি ক’ক্সবা’জার সদর মডেল থা’নায় না করে রামু থা’না অথবা আই’সিটি ট্রাই’ব্যুনালে করারও পরামর্শ দেন ওসি। ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার অভি’যোগে পুলি’শের কর্মক’র্তাসহ অ’ন্তত দেড় শ’তাধিক ব্যক্তি’কে আ’সামি করে মা’মলার কর’তে থা’নায় যান তারা।

শিপ্রা দেবনাথের আই’নজীবী এ’ডভোকেট মাহবুবুল আলম টিপু জানিয়েছেন, টেকনাফের বাহারছড়া পু’লিশ ত’দন্ত’কেন্দ্রে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা নি’হতের ঘটনায় পু’লিশের দায়ের করা মা’মলার আসামি শিপ্রা দেবনাথ জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশকিছু ব্যক্তিগত ছবি-ভিডিও ফেসবুকসহ নানা মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

এতে সামাজিকভাবে শি’প্রা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। এ কারণে সু’ষ্ঠু বিচা’রের পাওয়ার আশায় সাতক্ষীরা জে’লা পু’লিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও ঢাকা পি’বিআই পু’লিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান সহ ১০০ থেকে ১৫০ জনের বি’রুদ্ধে আইসিটি আইনে মা’মলা করতে থা’নায় এসেছি। কিন্তু, কক্সবাজার সদর থা’নার পু’লিশ আমা’দের মাম’লাটি গ্রহণ করেনি।

ঘটনাস্থল রামু থা’না এলাকা হওয়ায় মা’মলাটি রামু থা’না অথবা আইসিটি ট্রাই’ব্যনালে করার পরামর্শ দিয়েছেন কক্সবাজার সদর মডেল থা’নার ওসি মো. খায়রুজ্জামান। উপস্থিত শিপ্রার সাথে সাংবাদিকরা কথা বলতে চাইলে এডভোকেট মাহবুবুল আলম টিপু আরো জানান, বাদী শিপ্রা দেবনাথ মা’নসি’কভাবে অ’সুস্থ। সে এখন সাংবাদি’কদের সঙ্গে কথা বলতে পারবে না।

যখন স’ময় হবে তখন কথা বলবে। অ’পর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মা’মলাটি রামু থা’নায় করবো নাকি আই’সিটি ট্রাব্যুনালে করবো তা পরে সি’দ্ধান্ত নেওয়া হবে। এদিকে গত সোমবার কক্সবাজাওে এক প্রেস’ ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের গণ’মাধ্যম শাখার প্রধান লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানিয়েছিলেন, শিপ্রা ও সিফাতের কম্পিউটার ডিভাইস, মেমোরিসহ ২৯টি সামগ্রী কক্সবাজারের’ রামু থা’নায় পু’লিশের হেফাজতে আছে।

আম'রা তদ’ন্ত’কারী কর্মক’র্তা বিজ্ঞ আদালতে মাধ্যম উক্ত সরাঞ্জা’মাধি র‌্যাব হে’ফাজতে নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। কারণ, মা’মলার তদ’ন্তের স্বার্থে উক্ত কম্পিউটার ডিভাইস গুরুত্বপূর্ণ কাজ দিবে জানান তিনি। এর আগে,ব্যক্তিগত ছবি ফেসবুকে পোস্টকারী পু’লিশ কর্মক’র্তাদের বি’রুদ্ধে ডিজিটাল নি’রাপত্তা আইনে মাম’লা করবেন বলে জানান শিপ্রা দেবনাথ।

নি’হত মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদের সহযোগী ও রাজধানীর স্ট্যা’মফোর্ড বিশ্ব’বিদ্যালয়ের শি’ক্ষার্থী শিপ্রা দেব’নাথ নিজেই সোমবার বেসরকারি চ্যানেলে এক ভিডিও বার্তায় একথা বলেন। পু’লিশের বি’রুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইস নিয়ে যাওয়ার অ’ভিযোগ করে শিপ্রা ওই চ্যা’নেলের সাক্ষাৎকারে বলেন, “মেজর সিনহা হ’ত্যা’কা’ন্ডের পর রাতে এসে আমা’দের কটেজ থেকে পু’লিশ আমা’দের দুটি মনিটর, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, ক্যামেরা, লেন্স, তিনটি হার্ডড্রাইভ এবং আমা’দের ফোন ডিভাইস সব নিয়ে যায়।

জ’ব্দ তা’লিকায় যার কোনোটির কোনো উল্লে’খ নেই। আমি জানি না, এখন কী’ভাবে বা কার কাছে সেসব ফেরত চাইব।” তিনি আরও বলেন, “আমা’দের পার্সো’নাল প্রো’ফাইল ও ডি’ভাইস থেকে সে সব বিভিন্ন ছবি চু’রি করে কিছু বিকৃ’ত মস্তি’ষ্কের দা’য়িত্ব’শীল অফি’সাররাই ফেসবুক ও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন।

আমা’র নামে খোলা হয়েছে ফেক ফেসবুক আইডি, ইনস্টাগ্রাম আইডি। আমা’র ব্যক্তি জীবনকে যারা অসহনীয় করে তুলেছেন বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও তৈরির মাধ্যমে, তাদের প্রত্যেকের জন্য আমি তথ্য প্রযুক্তির ডিজিটাল নি’রাপত্তা আইনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করব, কথা দিলাম।”

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মারিশবুনিয়া পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকার নীলিমা রি’সোর্টে ফেরার পথে শামলাপুর ত’ল্লাশি চৌকিতে গুলিতে নি’হত হন মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ। এসময় পু’লিশ সিনহার সঙ্গে থাকা সিফাতকে আ’টক করে কা’রাগারে পাঠায়।

পরে রিসোর্ট থেকে শিপ্রাকে আটক করা হয়। দুজনই বর্তমানে জা’মিনে মুক্ত। ওই ঘটনায় ওসি প্রদী’পসহ অন্য পু’লিশ সদস্যরা এবং পু’লিশের দা’য়ের করা মা’মলার তিন সাক্ষী প্রথমে কক্সবাজার জে’লা কারাগার ও পরে আদালতের ৭ দিনের রি’মান্ড আদেশের প্রেক্ষিতে জি’জ্ঞাসা’বাদের জন্য র‌্যাব হেফা’জতে রয়েছে।

সর্বশেষ বাংলাদেশ আর্মড পু’লিশের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে আটকের আদালতে সোপর্দ করে ১০ দিনের রিমা’ন্ড আবেদন করে তদ’ন্তকারি সংস্থা র‌্যাব। কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তামান্না ফারাহ প্রত্যেক আসামমিকে ৭ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর করেন।

Advertisement
Advertisement

Check Also

দৈনিক ২০ থেকে ২২ ঘণ্টা কাজ করি, মাত্র ২ ঘণ্টা ঘুমাই : কলিমউল্লাহ

Advertisement দায়িত্বে অবহেলা করাটা চরিত্রের মধ্যে নেই বলে দাবি করেছেন রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!