অন্ধ হয়েও অলৌকিক ভাবে কুরআনের আয়াত দেখতে কি ভাবে পান হুসাইন সারহান ইয়াসারি! – OnlineCityNews

অন্ধ হয়েও অলৌকিক ভাবে কুরআনের আয়াত দেখতে কি ভাবে পান হুসাইন সারহান ইয়াসারি!

ইরাকের কারবালার অধিবাসী দৃষ্টি প্র’তিব’ন্ধী হুসাইন সারহান ইয়াসারি। তিনি কোনো কিছুই দেখতে পান না। অলৌকিক ব্যাপার হলো তিনি শুধুমাত্র পবিত্র গ্রন্থ কুরআনের আয়াতসমূহ দেখতে পান।

দৃষ্টি প্র’তিব’ন্ধী হওয়া সত্ত্বেও ৫৩ বছর বয়সী হুসাইন সারহান ইয়াসারি পবিত্র কুরআনুল কারিমের আয়াতসমূহ অ’লৌকিকভাবে দেখে দেখে তা তেলাওয়াত করতে পারেন। এটা মহান রবের এক অফুরন্ত রহমত।হুসাইন সারহান ইয়াসারি ২০০৪ সাল থেকে ধীরে ধীরে তার দৃ’ষ্টিশ’ক্তি হা’রাতে থাকেন।

অল্প কয়েক মাসের ব্যবধানে তিনি সম্পূর্ণ দৃ’ষ্টিহী’ন হয়ে যান। কোনো কিছুই দেখতে পান না।মহান আল্লাহ তাআলার অমূল্য নেয়ামত দৃ’ষ্টিশ’ক্তি হা’রানো সত্ত্বেও অ’লৌকিকভাবে পবিত্র কুরআনের আয়াতসমূহ দেখতে পান এবং কোনো প্র’তিব’ন্ধক’তা ছাড়াই ১ পারা কুরআন তেলাওয়াত করতে পারেন।

উল্লেখ্য যে, হুসাইন সারহান ইয়াসারি ইরাকের কারবালাস্থ ই’মাম মাহদি কুরআনিক ইন্সটিটিউটের আওতাধীন একটি দারুল কুরআন প্রকল্পের পরিচালিক হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন।

কুরআনের তেলাওয়াত সং’ক্রান্ত আহকাম ও নিয়ম-কানুন পর্যালোচনায় অ’ন্ধ’ত্ব তার কোনো বাধার কারণ হয়নি।তিনি কারবালার পশ্চিমাঞ্চলের আল-হুর্র আস-সাগির অঞ্চলে পবিত্র কুরআনের দক্ষ শিক্ষক হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। কুরআন তেলাওয়াতে দেখতে পারা দৃ’ষ্টিপ্র’তিব’ন্ধী হুসাইন সারহান ইয়াসারির প্রতি মহান প্রভূর বিশেষ অনুগ্রহ।

আরও পড়ুনঃনামাজ মুসলিম জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ। একজন মুসলিম কিছুতেই নামাজকে এড়িয়ে যেতে পারেন না। ঈমান আনার পর ইস’লামের পঞ্চস্তম্ভের দ্বিতীয়টিই হচ্ছে নামাজ। পবিত্র কোরআনে ঘোষণা করা হয়েছে—‘নিশ্চয়ই নির্ধারিত সময়ে নামাজ আদায় করা মুমিনদের ওপর ফরজ।’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ১০৩)ইস’লামের পরিভাষায় ফরজ মানেই হচ্ছে অবশ্যকরণীয়।

যা না করে কোনো উপায় নেই। নামাজ এমন একটি ইবাদত, যেখানে বান্দা ও তার প্রভুর মধ্যে সরাসরি যোগাযোগ সৃষ্টি হয়। একাগ্রচিত্তে নামাজ আদায়কারী একজন মানুষ ব্যক্তি ও সামাজিক জীবনে কোনো খারাপ কাজের সঙ্গে কোনোভাবেই সম্পৃক্ত হতে পারেন না।

কারণ তাঁর মধ্যে কাজ করে একটু পরই মহান রবের সঙ্গে কথোপকথনের মধুময় মুহূর্তের অনুভূতি। মহাগ্রন্থ আল-কোরআনে অন্তত ৮২ জায়গায় নামাজের কথা বলা হয়েছে। মহানবী (সা.)-এর জীবনের শেষ আদেশও ছিল এই নামাজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *