Breaking News
Home / সারা দেশ / যে কারণে ডা. সাবরিনাকে বরখাস্ত করল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে যেখানে আটকে যাচ্ছে

যে কারণে ডা. সাবরিনাকে বরখাস্ত করল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে যেখানে আটকে যাচ্ছে

Advertisement
Advertisement

নভেল করো’না ভা’ইরাস পরীক্ষায় অনিয়ম-দুর্নীতির অ’ভিযোগে অনুমতি বাতিল হওয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী নামে পরিচিত ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। রবিবার (১২ জুলাই) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুল মান্নানের সই করা এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বি’জ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতা’লের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রার ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইন চাকরিতে থেকেও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান জেকেজির চেয়ারম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। করো’না পরীক্ষার ভুয়া রিপোর্ট প্রদান ও অর্থ আত্মসাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন বলে আজ ১২ জুলাই পু’লিশের হাতে তিনি গ্রে’ফতার হয়েছেন।

বি’জ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সরকারি কর্মক’র্তা হয়ে সরকারের অনুমতি ছাড়াই বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত থাকা এবং অর্থ আত্মসাৎ সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অ’প’রাধ। তাই ডা. সাবরিনা শারমিন হুসাইনকে সরকারি কর্মচারী বিধিমালার বিধি ১২ (১) অনুযায়ী সাময়িক বরখাস্ত করা হলো। সাময়িক বরখাস্তকালীন সময়ে তিনি বিধি অনুযায়ী খোরপোষ ভাতা প্রাপ্ত হবেন।  এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

সবশেষ আজ রবিবার দুপুরে ডা. সাবরিনাকে ডেকে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পু’লিশ। ঢাকা মেট্রোপলিটন পু’লিশের (ডিএমপি) তেজগাঁও জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) হারুনুর রশিদ জানান, জিজ্ঞাসাবাদ শেষ গ্রে’ফতার করা হয়েছে তাকে। এবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ও তাকে বরখাস্ত করল।

জেকেজি হেলথ’কেয়া’রের চেয়া’রম্যান ও জা’তীয় হৃ’দরোগ ইনস্টিটি’উটের চিকিৎসক ডা. সাব’রিনা আরি’ফকে জিজ্ঞা’সাবা’দের জন্য তেজ’গাঁও বি’ভাগী’য় উপ-পু’লিশ কমিশনার (ডিসি) কার্যা’লয়ে ডাকা হয়ে’ছিল দুপুরে। কয়েক ঘণ্টা জি’জ্ঞা’সা’বাদের পর তাকে গ্রেফ’তার দেখা’নো হয়।

জি’জ্ঞাসা’বাদে বার’বারই অস্বী’কার কর’ছিলেন যে তিনি জে’কেজি’র চেয়ার’ম্যান নন। এ বিষ’য়ে বিকে’লে ডিসি কা’র্যাল’য়ে এক সংবাদ স’ম্মে’লনে ডিসি মোহা’ম্মদ হারুন অ’র রশিদ জিজ্ঞা’সাবা’দের একাংশ তুলে ধরে’ন। জি’জ্ঞাসাবা’দে অনে’ক প্রশ্নের উত্তর’ দিতেই আটকে যান ডা. সাব’রিনা।

ডিসি হারুন বলেন, জি’জ্ঞাসাবা’দে উনা’কে (ডা. সাবরিনা) প্রশ্ন করা হলো, ‘আ’পনি কি জে’কেজির চেয়ারম্যান?’ উনি ব’ললেন, ‘না, আমি ক’খনোই চেয়া’রম্যান না।’ ‘‘আমি (ডিসি হারুন) ব’ল’লাম, কয়ে’ক দিন আ’গেই তো আপ’নাকে চে’য়ারম্যান পদ থেকে বহি’ষ্কার কর’লো। তা’ছাড়া আপনি তি’তুমীর কলে’জের ঘট’নায় দাঁড়ি’য়ে জেকে’জির পক্ষে কথা বল’লেন, মু’খপাত্র হি’সেবে, চেয়া’রম্যান হিসে’বে কথা বল’লেন। সে’টা কী ছিল?’

উত্তরে সাবরিনা বলেন, ‘সেটা আ’মার হাস’ব্যান্ড (জেকে’জির সিইও আরি’ফুল হক চৌধুরী) আমা’কে বলতে ব’লেছিল। জি’জ্ঞাসা’বাদের বি’ষয়ে ডিসি হারু’ন বলেন, জে’কেজি’র ক’র্মকাণ্ড ও তার ক’র্ম’কাণ্ড নিয়ে আরও কিছু প্রশ্ন করা হ’য়েছিল, তিনি কো’নো সদুত্ত’র দিতে পারেননি।

আ’ম'রা মনে করি, যে কো’ম্পানি মানু’ষকে ক্ষ’তি করছে, যারা ক’রো’না নেগে’টি’ভকে পজি’টি’ভ আর পজি’টিভ’কে নে’গেটিভ বা’নাচ্ছে, মানু’ষের সঙ্গে প্র’তারণা করছে, বিদে’শের মাটিতে বাংলাদেশে’র ‘ভাব’মূর্তি ক্ষু’ণ্ন’ করছে সেই প্র’তিষ্ঠা’নের চেয়া’রম্যান হিসে’বে আ’ম'রা তাকে গ্রে’ফতার করি।

সাংবাদি’কদের এক প্রশ্নে’র জ’বাবে ডিসি বলেন, যে’হে’তু তিনি (ডা. সাবরিনা) এক’টি সরকা’রি প্র’তিষ্ঠানের ক’র্মকর্তা, তিনি কো’নোভা’বেই একটি বেস’র’কারি প্র’তিষ্ঠানের চেয়া’রম্যান থাকতে পারে’ন না, আবা’র চেয়া’রম্যান থা’কাকা’লীন সেই কো’ম্পানি’র মুখপাত্র হিসে’বে বক্তব্য দিতে পারেন না। উনি যে’হেতু ফে’সবুকেও জেকে’জির পক্ষে স্টেটমে’ন্ট দি’য়েছেন তাই জে’কেজির কর্মকা’ণ্ডের ‘দায়দা’য়িত্ব তিনি এড়াতে পারেন না। এ কা’রণেই তাকে গ্রে’ফতার করে রি’মা’ন্ডে আনা হচ্ছে।

যেভাবে এলো ডা. সাবরিনার নাম

ডিসি হারুন বলে’ন, ২২ জুন জে’কেজির সা’বেক গ্রাফি’ক্স ডিজাইনার হুমা’য়ুন কবীর হিরু ও তার স্ত্রী তান’জীন পা’টোয়া’রীকে আ’টক করে পু’লিশ। হিরু আমা’দের জানায়, সে ভুয়া করো’না সার্টিফি’কে’টের ডিজাইন তৈরি করতো। এই ভ’য়ান’ক তথ্য জা’নার পর আম'রা তাকে জিজ্ঞে’স করি এর সাথে কারা জ’ড়িত।

সে স্বীকার করেছে, কোর্টেও ১৬৪ ধারায় স্বীকা’রোক্তি’মূলক জবানবন্দি দিয়ে’ছে যে ভুয়া রি’পোর্টের সাথে জে’কেজি গ্রুপের লোকজন জড়িত। ডিসি হারুন বলেন, তখন জে’কেজির সিইও আ’রিফুলস’হ চা’রজনকে আটক করি। গ্রে’ফতার সিই’ওকে আম'রা জি’জ্ঞেস করি, ‘এই প্রতিষ্ঠা’নের চেয়ারম্যান কে?’ উত্তরে তিনি বলেন, ‘চেয়ারম্যান ডা. সাব’রিনা চৌধুরী।’ এরপর একে একে ছয়জ’নই এক উত্তর দিলেন।

ডা. সাবরিনাকে গ্রে’ফতারে বিলম্ব কেন?

ডিসি হারুন বলেন, ‘তার বিরু’দ্ধে আম'রা তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছিলাম। ত’দন্ত কর্মক’র্তা গ্রেফ’তারের জন্য একটু সময় নিয়েছে, যেহেতু সাব’রিনা চৌধুরী একজন ডাক্তার, একজন সরকা’রি কর্ম’কর্তা।’ এর আগে রো’ববার দুপুর সোয়া ১টায় তাকে জি’জ্ঞাসা’বাদের জন্য তেজগাঁও বিভা’গীয় উপ-পু’লিশ (ডিসি) কার্যালয়ে আনা হয়। জি’জ্ঞাসা’বাদ করেন জেকে’জির প্রতা’রণা মা’ম’লার ত’দন্ত কর্মক’র্তা, ডিসিসহ পু’লিশের ঊর্ধ্ব’তন কর্মক’র্তা’রা। দুই ঘণ্টা পর বিকেল সোয়া ৩টার দিকে তাকে গ্রেফ’তার দেখানো হয়।

কে এই ডা. সাবরিনা

ডা. সাব’রিনা জা’তীয় হৃদরোগ ইন’স্টিটিউটের চিকিৎসক। পু’লিশ বলছে, সাবরিনা জেকেজির চেয়ার’ম্যান। তবে সা’বরি’না নিজে’কে জেকে’জির ‘চেয়ার’ম্যান নয়’ বরং প্রতিষ্ঠা’নটির ‘কোভিড-১৯ বিষয়’ক পরা’মর্শক’ দা’বি করেছেন। দা’য়িত্বশী’ল সূত্র জানায়, সাব’রিনা আরি’ফের চতু’র্থ স্ত্রী।

তার প্রথম ও ‘দ্বি’তীয় স্ত্রী রাশিয়া ও লন্ড’নে থা’কেন। তৃ’তীয় স্ত্রীর সঙ্গে তালাক হয়েছে তার। চতু’র্থ স্ত্রী ডা. সাবরিনার কারণেই ক’রোনা’র নমুনা সংগ্রহে’র কাজ পায় জেকেজি হেল’থকেয়ার। প্রথমে তিতুমীর কলেজ মাঠে স্যাম্প’ল কা’লেকশন বুথ স্থাপনের অনুম’তি মিললেও প্রভা’ব খাটিয়ে ঢাকার অন্য এলাকা এবং অনেক জে’লা থেকেও নমু’না সংগ্রহ কর’ছিলেন তারা।

সূত্র আরও জা’নায়, ঢাকা, নায়া’য়ণগঞ্জ, নরসিংদী ও গাজীপুরসহ বিভিন্ন স্থানে ৪৪টি বুথ স্থাপন করে’ছি’ল সাবরিনা-আ’রিফ দম্পতি’র জেকে’জি প্রতি’ষ্ঠান। নমুনা সংগ্র’হের জন্য মাঠ’কর্মী নি’য়োগ দেয়া ছিল। তাদের হটলা’ইন নম্বরে রো’গীরা ফোন দিলে মাঠ’ক’র্মীরা বাড়ি গি’য়েও ন’মুনা সংগ্রহ করতেন। আবার অনে’ককে জে’কে’জির বুথের ঠিকানা দেয়া হতো। এভা’বে কর্মীরা প্র’তিদিন গড়ে ৫০০ মানু’ষের নমুনা সংগ্রহ ক’রতো।

পরে তাদের গুলশা’নের একটি ভব’নের ১৫ তলার অফি’সের একটি ল্যা’পটপ থেকে ভু’য়া সনদ দিত। ওই ল্যা’পটপ থেকে জেকে’জির কর্মী’রা রাত’দিন শুধু জাল রিপোর্ট তৈরির কাজ করতো। প্র’তিটা সন’দের জন্য নেয়া হতো পাঁচ হা’জার টাকা পর্যন্ত। বিদে’শি’দের কাছ থেকে নেয়া হতো ১০০ ডলার। য’দিও শর্ত ছিল বিনামূ’ল্যে ন’মুনা সংগ্রহ করে সরকার নির্ধা’রিত ল্যাবে পাঠা’তে হবে। কিন্তু তারা সব ধ’রনের শর্ত’ভ’ঙ্গ করে পরীক্ষা ছা’ড়াই রি’পো’র্ট দিত।

Advertisement
Advertisement

Check Also

৩০ কেজি ওজনের একটি বাঘাইড় একনজর দেখতে উৎসুক জনতা ভিড়

Advertisement Advertisement ময়মনসিংহের নান্দাইলে ৩০ কেজি ওজনের একটি বাঘাইড় একনজর দেখতে উৎসুক জনতা ভিড় করছেন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!