Breaking News
Home / করোনা নিউজ / ডা. ফারিয়ার অসাধারণ করোনার চিকিৎসা

ডা. ফারিয়ার অসাধারণ করোনার চিকিৎসা

Advertisement
Advertisement

ক’রো’না ভা’ইরা’সের সংক্র’ম’ণে ইতো’মধ্যে দেশের চিকিৎসা ব্য’বস্থা নড়ব’ড়ে হয়ে পড়েছে। অদৃশ্য এ ভাই’রা’সের ‘বি’রু’দ্ধে সা’মনের কাতারের যো’দ্ধারা’ও আ’ক্রা’ন্ত হচ্ছেন। পাশা’পাশি অন্য রো’গের চিকিৎসাও পাচ্ছে’ন না রো’গীরা। এ অব’স্থায় ‘ক’রো’না ভা’ইরাসে আ’ক্রা’ন্ত রোগী এবং অন্য রো’গী’দের চিকিৎসায় নিজ উ’দ্যোগে ‘ফিমে’ল ডেন্টাল সার্জন অব বাং’লাদেশ’ এর বন্ধু’দের নিয়ে ব্যতি’ক্র’মী এক উ’দ্যোগ নিয়েছেন বঙ্গব’ন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যা’লয়ের (বিএসএমইউ) অর্থোডন্টিস্ট বিভাগের আ’বাসিক সার্জন ডা. ফারি’য়া তাবা’সসুম তন্বী।

ডা. ফারিয়া ২০১৯ সালে’র জু’লাই মাসে ফি’মেল ডেন্টা’ল সার্জ’নদের নিয়ে একটি ফে’ইস’বুক গ্রুপ খুলে’ছিলেন। ক’রো’না ভা’ইরা’সের ‘প্র’কোপ দেখা দিলে ৫০ জন ফি’মেল ডেন্টাল সা’র্জন নিয়ে এক’টি ফ্রি মে’ডিক্যাল টিম গঠন করেন। পরব’র্তী’কালে তাদের সঙ্গে যোগ দেন বি’ভিন্ন বিশে’ষজ্ঞ এবং ক’রো’না ডে’ডিকে’টেড চি’কিৎসক। তিনি এ টিমে’র সদস্য’দের মো’বাইল ন’ম্বর সা’মাজিক যোগাযো’গের মা’ধ্যমে ছড়িয়ে’ দি’য়েছেন যেন যে কেউ ফোন’ দিয়ে চি’কিৎসা নিতে’ পারে।

ডা. ফারি’য়া বলেন, ‘শুরু’টা হ’য়েছিল ফ’লস নে’গে’টিভ রি’পো’র্টের কারণে। ক’রো’না ভাই’রাস রিপো’র্ট নেগে’টিভ বলে আ’মাদের ফিমে’ল ডেন্টা’ল সা’র্জন শু’ভেচ্ছার বাবার (৬৫) নিশ্বাসে কষ্ট হও’য়া সত্ত্বে’ও তাকে ভর্তি করছিল না ক’রো’না ডেডি’কে’টেড কোনো হা’সপাতাল। তি’নদিন বিভিন্ন হা’সপাতা’লের ঘু’রে ঘুরে তিনি মৃ’ত্যু’র দিকে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। আ’ক্রা’ন্ত হওয়ার লক্ষ’ণ ছিল বলে অন্য হাস’পা’তালও ভ’র্তি করছি’ল না।

তখন কী করবো ভেবে পা’চ্ছি’লাম না। অনলাইনে অ’ক্সি’জেনের খোঁজ পেলাম। পা’লস অক্সিমি’টার কি’নলা’ম। বাসায় রে’খেই ইমা’রজে’ন্সি চিকিৎসা শুরু কর’লাম। অনেকটা চ্যালে’ঞ্জ হি’সেবেই নিলা’ম আমি আর ডা. শুভেচ্ছা। রাত জে’গে ফোনে’ই চিকি’ৎসা দিতাম। আমা’দের সঙ্গে অন’কলে থাকতেন বি’শে’ষজ্ঞ চিকিৎসকরা। এভাবেই একজন-দু’জন করে বর্তমানে ১০০ ক’রো”না রো’গী ছা’ড়িয়েছে, যাদের বে’শির’ভাগের বয়স প’ঞ্চাশে’র বেশি। বর্তমা’নে সব রো’র অবস্থাই স্থি’তিশীল। সেই সঙ্গে প্রতি’দিন রোগী বাড়ছে।’

তিনি বলেন, ‘যারা হাস’পাতালে ইমা’রজে’ন্সি চি’কিৎসা পাচ্ছে’ন না, তাদের জন্য আম'রা’ বাং’লাদেশ ফিমে’ল ডেন্টা’ল সা’র্জনের (এফডিএসবি) উ’দ্যোগে বি’শেষ’জ্ঞ’ ডাক্তা’রদের সম’ন্বয়ে গঠন ক’রেছি ই’মার’জেন্সি কো’ভিড-১৯ মেনে’জ’মেন্ট টিম। বাড়ি’তে’ই চিকিৎসা দিয়ে ইমা’রজে’ন্সি রো’গীদে’র অ’ধিকাং’শ সু’স্থ করা সম্ভব। অসংখ্য রো’গীর চিকিৎসা থেকে ধা’রণা ক’রছি ঘরে বসে চি’কিৎসা নি’লেই ১৪ দিনে সুস্থ হয়ে যা’বেন’ ইন’শাআল্লাহ।

এটি খুব জটি’ল রো’গ নয়। বয়’স্ক ও আ’গে থেকেই অন্য রোগে আ’ক্রা’ন্তরাও বেঁচে যাচ্ছেন। প্রথম থে’কেই চি’কিৎসা দিলে অ’ধি’কাংশ মানুষে’র ‘জী’বন বেঁ’চে যাবে। আ’মাদের মৃ’ত্যু’ সং’খ্যা এখন প’র্য’ন্ত শূন্য। কারণ আ’ম'রা আ’গে থেকে বাড়ি’তেই অক্সিজেন দিয়ে রোগী কিছুটা স্বাভাবিক হলে হাসপাতা’লে যেতে বলি। আসলে বাড়িতে অক্সি’জে’নের ব্যবস্থা করলে পরে আর হাস’পা’তালে যাওয়ার প্রয়ো’জন হয় না।’

রোগী’দের চি’কিৎসার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আম’রা’ কোভি’ড-১৯ পজি’টি’ভ বা নেগে’টি’ভ রিপোর্ট যাই আসু’ক না কেন, লক্ষ্মণ থা’কলেই চি’কিৎসা শুরু করে দেই। পা’শাপা’শি আরও কিছু পরী’ক্ষা করাই, যা কো’ভিডে’র লক্ষ’ণ গু’লোকে সাপো’র্ট করে। তখন দেরি না করে সব নি’রাপ’দ ওষুধ দিয়ে চি’কিৎসা শুরু করি। এখানে হারা’নোর কিছু নাই। রিপোর্ট এক’বার নয়, অসংখ্যবার ভুল আসতে পারে। তাই চি’কিৎসা শুরু করে আম’রা পর্যাক্র’মে সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত রো’গীদে’র পর্য’বেক্ষ’ণে’ রাখি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ক’রো’না ভা’ইরা’সে আ’ক্রা’ন্ত রো’গী’দের মধ্যে যারা’ তরু’ণ তা’দের ফ্রি চিকিৎসা দেও’য়ার বি’নি’ময়ে আম’রা তাদের প্লা’জ’মা ডো’নেট করতে উৎসাহ ‘দিচ্ছি। আ’র যারা সচ্ছল তা’দের বলেছি, কো’নো অভাবী প’রি’বারের চি’কিৎসার খরচ যেন সম্ভব হলে তারা বহন করে’ন। অ’ভাবী পরি’বারগু’লোর নম্বর সচ্ছ’লদের দেওয়া হচ্ছে। তারা চাইলে তাদে’র মতো করে অ’ভাবী রো’গীদের সা’হায্য করবেন। অ’নেকেই রাজি হ’য়েছেন সাহা’য্য করতে।’

ডা. ফারি’য়া বলেন, ‘ফিমেল ডেন্টা’ল সার্জ’নদের আমা’দের এ গ্রুপ টি’ম ওয়া’র্কের মাধ্যমে কাজ কর’ছি। আমা’র সঙ্গে সা’রা রাত জে’গে ফিমেল ডে’ন্টাল সার্জ’নরা গত দুই সপ্তা’হ ধ’রে কাজ করে যাচ্ছেন। তাদের মধ্যে উল্লে’খ’যোগ্য ডা. শাম্মা, ডাক্তার পুণ্য, ডা.মিশি এবং ডা. শুভেচ্ছা। আম'রা দিনে ২-৩ ঘণ্টা ঘুমাই। আম'রা অনে’কেই অসু’স্থ হয়ে পড়ছি। আবা’র কি’ছুটা বি’শ্রাম’ নিয়ে রো’গীদের সেবা দিচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘যাদের রি’পোর্ট ফলস নেগেটিভ বা ফলস পজিটিভ আসছে, তারা কোনো চিকি’ৎসা না পেয়েই মা’রা যাবে, তা হবে না। ঘরে বসেই চিকিৎসা দেওয়া এবং নেওয়া সম্ভব। এটা করতে পারলে ক্রিটিক্যাল রো’গী’দের হাসপা’তালে চিকিৎসা পাও’য়ার ক্ষেত্র উ’ম্মু’ক্ত হবে। কেউ তখন রা’স্তায় রাস্তা’য় ঘুরে’ মা’রা যাবে না।’

Advertisement
Advertisement

Check Also

দেশে করোনার আরো নতুন ৫ উপসর্গ, জানুন সেগুলো কি কি?

Advertisement Advertisement আনিস সাহেব (ছ’ন্দ নাম) অফিস থেকে ফি’রেই ক্লা’ন্তি বো’ধ কর’ছিলেন। অফিস থেকে ‘ফিরলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!