আমিরাতে ভ্যাকসিন নিলেন প্রবাসী বাংলাদেশী, জেনে নিন ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রক্রিয়া

সংযুক্ত আরব আমিরাতে করোনা ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন আমিরাতে পেশাদার সাংবাদিকদের প্রভাবশালী সংগঠন, বাংলাদেশ প্রেসক্লাব ইউএই’র সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মোরশেদ আলম।

বৃহস্পতিবার (২৪ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানী আবুধাবির এডনিক এক্সিভিশন সেন্টার থেকে তিনি এই ডোজ গ্রহণ করেন।

গত ৩ ডিসেম্বর তিনি প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছিলেন। প্রথম ডোজ গ্রহণ করার পর কেন তিনি মিডিয়ার সামনে আসেননি? সে প্রসঙ্গে তিনি প্রবাস বার্তাকে বলেন, আম'রা ভ্যাকসিন নিয়েছি শুনলে অনেকে আমা’দের উপর ভরসা করে চিন্তা ভাবনা না করে ভ্যাকসিন নিয়ে ফেলতে পারেন,

তাই আমি প্রথম ডোজ নেওয়ার পর মিডিয়া সামনে আসিনি বা বলিনি, কারণ অনুধাবন করছিলাম কেমন লাগে বা কেমন অনুভব হয় সেটি বুঝার জন্য। আলহামদুলিল্লাহ্‌ আমি এখন ভালো অনুভব করেছি।

আমা’র সাথে আবুধাবি কমিউনিটির অনেক প্রবাসী সিনো ভ্যাকসিনের ডোজ গ্রহণ করেছেন। এরইমধ্যে বিভিন্ন দেশের কয়েক হাজার মানুষ ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের সবাই ভাল আছেন এবং প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ ভ্যাকসিন নিচ্ছেন। এছাড়াও আমিরাতের প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সহ অসংখ্য উচ্চপদস্থ লোকজন সিনো ভ্যাকসিনের ডোজ গ্রহণ করেছেন।

ভ্যাকসিন নেওয়ার প্রক্রিয়া কি? সে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রথমবার ভ্যাকসিন নেওয়ার আগে অবশ্যই আপনার একমাস মেয়াদের করোনা নেগেটিভ রেজাল্ট থাকতে হবে। এরপর সিরিয়াল ধরে আপনার নাম রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং একটি ফরম পূরণ করতে হবে। ফরম পূরণের পর আপনার ব্লাড প্রেশার, হার্ট রেট, অক্সিজেন পরীক্ষা করা হবে।

আপনার ডায়বেটিস বা অন্যকোন রোগ আছে কিনা জিজ্ঞেস করবে। সব ঠিক থাকলে আপনার শরীরে ডোজ প্রয়োগ করবে। প্রথম ডোজের ২১ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করতে হবে। প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজের চারদিন পর আপনার সাথে সিহা থেকে ডাক্তার ভার্চুয়াল তথা টেলিফোনে কথা বলবেন এবং আপনি কেমন অনুভব করছেন বা কেমন আছেন সেটা জেনে নিবে।

কেউ কোন রকম অ’সুস্থতা বোধ করলে হট লাইন নাম্বার (028191111) এ যোগাযোগ করতে অথবা শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান মেডেকেল যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৯ ডিসেম্বর থেকে সর্বসাধারণের জন্য চীনের সিনো ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিয়েছে আমিরাত সরকার। দেশটিতে প্রায় সব মেডিকেলে সিনো ভ্যাকসিনের ফ্রি ডোজ দেওয়া হচ্ছে। আমিরাতে গত আগস্ট থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তৃতীয় ধাপের ট্রায়াল চলে সিনো ভ্যাকসিনের। এতে অংশ নেন ১২৫ টি দেশের ৩১ হাজার মানুষ।

ট্রায়াল শেষে গত ১৪ সেপ্টেম্বর ফ্রন্ট লাইন কর্মীদের ডোজ প্রয়োগের অনুমোদন দেয় আমিরাত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। পরে ফাইনাল ট্রায়াল শেষে শতভাগ (effectiveness) ৯৯ ভাগ (seroconversion rate) এবং ৮৬ শতাংশ (efficacy) তথা কার্যকর উল্লেখ করে আমিরাত সরকার একমাত্র এবং সর্বপ্রথম এ ভ্যাকসিনের অনুমোদন দেন।

অসম্ভব সুন্দর পরিবেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগের সুযোগ করে দেওয়ায় আমিরাতের রাষ্ট্রপতি শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, প্রধানমন্ত্রী শেখ মুহাম্মদ বিন রাশেদ আল মাকতুম ও আবুধাবীর ক্রাউন প্রিন্স, তথা মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী নেতা, শেখ মুহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মোরশেদ আলম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!